বন্ধু ভয়ঙ্কর

মোস্তফা কামাল

আবিদ আহমেদ ও কামরুল আহসান দুই বন্ধু। ছোটবেলা থেকেই তাদের মধ্যে ঘনিষ্ট বন্ধুত্ব। একই সঙ্গে লেখাপড়া এবং বেড়ে ওঠা। দুজনের পারিবারিক সম্পর্কও বেশ অটুট। তারা ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়। কামরুল আওয়ামী লীগ এবং আবিদ বিএনপির কেন্দ্রীয় পর্যায়ের নেতা। রাজনৈতিক কারণে দুই পরিবারের সম্পর্কে ফাটল ধরেছে। আগে এ অবস্থা ছিল না। বিগত কয়েক বছর ধরে অবনতি ঘটতে ঘটতে সম্পর্কের পারদএকেবারেই নীচে নেমে গেছে। বলা যায়, তাদের সম্পর্ক সুতায় আটকে আছে।

যদিও তাদের ওঠাবসা, চলাফেরা একসঙ্গে। একজন আরেকজনকে ছাড়া চলতে পারে না। যে কোনো কাজ করতে গেলে একজন আরেকজনের পরামর্শ নেয়। আবার রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের কারণে মুখ দেখাদেখিও বন্ধ হয়ে যায়। দুই বন্ধুর কা-কির্তি দেখে অনেকেই মন্তব্য করেন, ওদের সম্পর্কটা বড় অদ্ভুত। এই মুহূর্তে হয়তো ঝগড়া করছে; আবার পরমুহূর্তেই দেখা যায়, হাসছে, খেলছে, গল্প করছে। দুই বন্ধুর বিরোধ জাতির জনককে নিয়ে। এছাড়া স্বাধীনতার ঘোষক এবং ১৫ আগষ্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন নিয়ে তারা প্রায়ই তর্কে মেতে ওঠে।

কখনো কখনো বিএনপি-জামায়াতের আঁতাত নিয়েও তাদের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হয়। কালে কালে সেই ঝগড়াঝাটি প্রতিহিংসায় রূপ
নিয়েছে। এখন একজন আরেকজনের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। কে কাকে কিভাবে ল্যাং মারবে তা নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটায় তারা। কামরুল রাজনৈতিক দল করলেও ঠিকাদারি পেশার সঙ্গে জড়িত। সরকারি দল করলে ঠিকাদারির কাজ পাওয়া সহজ। আবার কাজ না করেও টাকা তুলে নেওয়া যায়। তবে লোকে বলে না, পচা শামুকে পা কাটে! কামরুলের সে রকম অবস্থাই হয়েছে। সে কয়েকটি প্রকল্পের কাজ না করেই বেশির ভাগ টাকা তুলে নেন।

বিষয়টি আবিদ আহমেদ জানতে পেরে সাংবাদিকদের কাছে ফাঁস করে দেন। পরদিনই পত্রিকায় ফলাও করে কামরুল আহসানের বিরুদ্ধে রিপোর্ট ছাপা হয়। পত্রিকার রিপোর্ট দেখে কামরুল আহসানের মাথা খারাপ অবস্থা। কে করল কাজটা তা জানার জন্য ব্যস্ত হয়ে ওঠে সে। ছুটে যায় পত্রিকা অফিসে। কিভাবে তারা জানতে পারল তা জানার জন্য খোঁজ-খবর করে। অনেক ঘোরাঘুরির পর সে জানতে পারে, আবিদ আহমেদই রিপোর্টারদের তথ্য দিয়েছে।

এ কথা শোনার পর কামরুল আহসানের মাথায় আগুন ধরে যায়। সে আবিদ আহমেদকে সায়েস্তা করার জন্য উঠেপড়ে লাগে। সে মনে মনে ভাবে, আবিদকে এমন ফাঁসান ফাঁসাতে হবে, যাতে কোনো দিন সে আমার বিরুদ্ধে লাগতে না আসে! কামরুল আহসান ক্ষমতাসীন দলের নেতা। তাই তার সঙ্গে স্থানীয় থানা পুলিশের দহরম মহরম। তিনি থানায় গেলেন। ওসি সাহেবের সঙ্গে পরামর্শ করলেন। তাকে বললেন, ওসি সাহেব, একটা লোককে সাইজ করতে হবে।

কিভাবে করবেন চিন্তা করেন। লোকটা কিন্তু কঠিন বিএনপি!

ওসি সাহেব বললেন, হুম। বিএনপি হলেই তো সাইজ করা সহজ। কিন্তু লোকটা কে? আমাদের পাড়ার আবিদ আহমেদ।
সে না আপনার বন্ধু?
আরে রাখেন আমার বন্ধু! ভয়ঙ্কর খারাপ লোক। ওকে সাইজ না করলে আমাকে বিপদে ফেলবে। কয়েক দিন আগে সে আমার বিরুদ্ধে পত্রিকায় রিপোর্ট করিয়েছে। ভেবেচিন্তে বলেন। পরে আবার বন্ধু জন্য তদবির করতে আসবেন না। ভেচেচিন্তেই বলছি। তাকে শক্ত করে ধরেন।

তাহলে অস্ত্র মামলায় ফাঁসায়ে দিই!
দেন। জেলটেল খেটে আসুক। জেল না খাটলে সোজা হবে না।
ঠিক আছে। আমি দেখছি। আপনি কোনো চিন্তা করবেন না।

পরদিনই ওসি সাহেব পুলিশ পাঠালেন আবিদ আহমেদের বাড়িতে। সাত- সকালে বাড়িতে পুলিশ দেখে বিস্মিত হন আবিদ। তিনি পুলিশকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনারা? পুলিশ ইন্সপেক্টর সোহেল বললেন, আপনার বাড়ি সার্চ করতে হবে।
মানে! আপনার বিরুদ্ধে থানায় সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে। আমরা সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই এসেছি।

কিসের অভিযোগ? কার অভিযোগ?

কামরুল আহসান সাহেব অভিযোগ করেছেন। আপনার বাড়িতে নাকি অবৈধ অস্ত্র আছে।
কামরুল! বিস্ময়ে চোখ কপালে ওঠে আবিদ আহমেদের।
পুলিশ স্বভাব সুলভ ভঙ্গিতে বলল, জি।
পুলিশ হুড়মুড় করে বাড়িতে ঢুকে সার্চ করা শুরু করল। হঠাৎ খাটের নীচ থেকে একটি ব্যাগ বের করে বলল, অভিযোগ সত্য। এই যে অস্ত্র! আপনার বাসায় অস্ত্র পাওয়া গেছে। অবৈধ অস্ত্র রাখার অভিযোগে আপনাকে গ্রেপ্তার করা হলো।
আবিদ আহমেদ নিরুপায়। তিনি পুলিশের সঙ্গে থানায় চলে গেলেন। যেতে যেতে মোবাইল ফোনে কামরুল আহসানকে বললেন, এতোবড় মিথ্যাচার না করলেও পারতি! একদিন তোকে এর প্রায়শ্চিত্য করতে হবে।
কামরুল আহসান শুধু বললেন, বেশি বাড়াবাড়ি করছ না! এইবার জেলে পচো!
বন্ধুকে জেলে পাঠিয়ে ভীষণ খুশি কামরুল আহসান। সে ফোন রেখে
অট্টহাসিতে মেতে ওঠে। হাসতে হাসতে সে বাসার দিকে পা বাড়ায়। হঠাৎ তাকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে দুদকের কয়েকজন কর্মকর্তা।

তাদের দেখে ভড়কে যান কামরুল। ভয় আর বিস্ময়মিশ্রিত কণ্ঠে তিনি বলেন, কি ব্যাপার! আপনারা কারা?
আমরা দুদকের লোক।
দুদকের নাম শুনে কামরুল আহসান ভয়ে কুকড়ে যান। শুকনো গলায় বলেন, দুদকের লোক!

লেখক : কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *