মোস্তফা কামাল বাংলা ভাষার একজন সাহিত্যিক সাংবাদিক। তিনি লেখালেখির জগতে প্রবেশ করেন ১৯৮৪ সালে। শুরুতে ছড়া, কবিতা লিখতেন। তখন থেকেই তিনি সাপ্তাহিক বিপ্লবী বাংলাদেশ ও দৈনিক প্রবাসী পত্রিকায় সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করেন। সেখান থেকেই সাংবাদিকতায় তাঁর হাতে খড়ি। সাহিত্যের প্রায় সব শাখাতেই রয়েছে তাঁর অবাধ বিচরণ। এ পর্যন্ত প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ৯৮টি। তাঁর সাড়া জাগানো উপন্যাস জননী, অগ্নিকন্যা, অগ্নিপুরুষ, জনক জননীর গল্প, হ্যালো কর্নেল, জিনাত সুন্দরী ও মন্ত্রী কাহিনী, প্রভৃতি। পেশাগত দায়িত্ব পালনের অংশ হিসেবে তিনি আফগানিস্তানের যুদ্ধোত্তর পরিস্থিতি, নেপালের গণ আন্দোলন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর রাজনৈতিক হত্যাকান্ড এবং ভারত ও পাকিস্তানের রাজনীতি, আর্থ-সামাজিক ও মানবাধিকার পরিস্থিতির উপর কাজ করেন।

তিনি কিছুকাল সাপ্তাহিক আগামীর সাথে পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেন পরবর্তী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে নানামুখি চাপের কারণে পত্রিকাটি বন্ধ হয়ে যায়।

 

জন্ম

মোস্তফা কামাল ১৯৭০ সালের ৩০ মে বাংলাদেশের বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার আন্ধারমাণিক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। সেখানেই কাটে শৈশব ও কৈশোর। চার ভাইবোনের মধ্যে তিনি তৃতীয়। তার পিতা মোহাম্মদ হোসেন হাওলাদার এবং এবং মা সুফিয়া বেগম। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত ও দুই সন্তানের জনক।

 

শিক্ষাজীবন

বাড়ির পাশে সরকারি প্রাইমারি স্কুলে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হন। প্রথম হয়ে দ্বিতীয় শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয়ে তিনি পার্শবর্তী হিজলা থানা সদরে টিটিএন্ডডিসি প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি হন। সেখান থেকে তিনি কৃতিত্বের সঙ্গে প্রাথমিক শেষ করে বিসিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। তিনি বরাবরই ক্লাশের ফার্স্টবয় ছিলেন। জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষায় বৃত্তি লাভ করেন। এসএসসিতে তিন বিষয়ে লেটারসহ প্রথম বিভাগ লাভ করেন। তেজগাঁও কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি ইংরেজি সাহিত্য ও সরকার ও রাজনীতি বিষয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করেন।

 

সাংবাদিকতা

১৯৯১ সাল থেকে ঢাকায় তিনি নিয়মিত লেখালেখির পাশাপাশি সাংবাদিকতা পেশায় যোগ দেন। শুরু করেন সাপ্তাহিক রোববার-এ রাজনৈতিক প্রতিবেদক হিসেবে। পরে তিনি দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় যোগ দেন এবং কূটনৈতিক সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করেন। ১৯৯৮ সালে তিনি কূটনৈতিক সংবাদদাতা হিসেবেই প্রথম আলো পত্রিকায় যোগ দেন। সেখানে তিনি চিফ রিপোর্টার ও বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে দীর্ঘ প্রায় ১১ বছর কাজ করেন। পরে ২০০৯ সালের শেষের দিকে তিনি উপ-সম্পাদক হিসেবে দৈনিক কালের কণ্ঠ যোগ দেন। ২০১২ সাল থেকে তিনি নির্বাহী-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। দৈনিক কালের কণ্ঠ নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি বহু বাধা, বিপদ, রাজনৈতিক হয়রানি ও মামলার সম্মুখীন হয়েছেন

 

সাহিত্য

মোস্তফা কামাল দেশের একজন বিশিষ্ট সাহিত্যিক। তার প্রথম প্রকাশিত ছড়া ‘মেঘনা’। প্রথম উপন্যাস ‘পাপের উত্তরাধিকার’। প্রথম গল্প “বীরাঙ্গনার লড়াই’ । প্রথম কিশোর উপন্যাস “ভিনদেশি গোয়েন্দা’, প্রথম সায়েন্স ফিকশন ‘ক্লোনমামা’, প্রথম শিশুতোষ বই ‘পাগলাভূত’। প্রথম বিদ্রুপ ও রম্য বই ‘পাগল ছাগল ও গাধাসমগ্র’। প্রথম নাটক ‘প্রতীক্ষার শেষ প্রহর’, প্রথম গবেষণামূলক বই ‘আসাদ থেকে গণঅভ্যুত্থান’। কলকাতা থেকে সাহিত্যম প্রকাশ করেছে দুটি বই, ছয়টি সায়েন্স ফিকশন ও পাঁচটি গোয়েন্দা উপন্যাস।

 

ভুমিকা

মোস্তফা কামাল আড়াই দশকের বেশি সময় ধরে প্রবন্ধ নিবন্ধ গবেষণা, কবিতা, উপন্যাস, প্রবন্ধ, গল্প, শিশুসাহিত্য, সায়েন্স ফিকশন, রঙ্গব্যঙ্গ, নাটকসহ সাহিত্যের প্রায় সব শাখাতেই রয়েছে তার অবাধ বিচরণ। কথাসাহিত্যের ক্ষেত্রে মুক্তিযুদ্ধ, ঐতিহাসিক ঘটনা ও রাজনীতি মোস্তফা কামালের প্রিয় বিষয়। তবে তিনি ঐতিহাসিক উপন্যাস রচনায় সিদ্ধহস্ত। মোস্তফা কামাল তার রচিত রঙ্গব্যঙ্গ গ্রন্থটির ভূমিকায় তিনি লিখেছেন ‘রঙ্গব্যঙ্গ-এর দীর্ঘ এগারো বছরের পথচলায় অনেক বাধা-বিপত্তি, হুমকি-ধমকি, এমনকি মামলাও হয়েছে তার বিরুদ্ধে । কিন্তু কোনোদিন তিনি অন্যায়ের কাছে মাথা নত করিনি। লিখেছেন ‘অগ্নিকন্যা’ ও ‘অগ্নিপুরুষ’ নামক রাজনৈতিক ও ঐতিহাসিক উপন্যাস। তাঁর রচিত রচনাবলী মধ্যে রয়েছে:

 

প্রবন্ধ নিবন্ধ গবেষণা

 

উপন্যাস

 

গল্প

  • বিরাঙ্গনার লড়াই (নন্দন প্রকাশন)
  • বালিকা বউ (আলোঘর প্রকাশনা)

 

সায়েন্স ফিকশন

 

কিশোর উপন্যাস

 

শিশুতোষ

  • পাগলা ভূত (এশিয়া)
  • আজব দেশ কঙ্কাবতী (এশিয়া)
  • বোকাভূত (পাঞ্জেরী)
  • নীল পরির কা´ (পাঞ্জেরী)

 

রঙ্গব্যঙ্গ

 

সমগ্র

 

নাটক

  • প্রতীক্ষার শেষ প্রহর (জানুয়ারি ২০০১) প্রযোজক সালাম শিকদার
  • পোড়ামাটির ঘর (জানুয়ারি ২০০২) প্রযোজক সালাম শিকদার
  • অনিতা (২০০৩) প্রযোজক সালাম শিকদার
  • আমি কী তোমার নই? (২০০৫) প্রযোজক সালাম শিকদার
  • বাড়ি নাম্বার ৩০৩ ( ফেব্রুয়ারি ২০০৬) প্রযোজক রফিক উদ্দিন আহমেদ
  • আমাদের এই নগরে (১৫ মে ২০০৮) প্রযোজক বদরুজ্জামান
  • একজন রাগিব আলী (২০১৪) প্রযোজক মো. আবু তৌহিদ
  • হ্যালো ব্যাচেলর (১০ অক্টোবর, ২০১৫) মোস্তাফিজুর রহমান
  • ধারাবাহিক নাটক নীল জোছনা (১৬ পর্ব) ২৪ ডিসেম্বর ২০১৬ থেকে শুরু

 

পুরস্কার ও সম্মননা
অগ্নিকন্যা উপন্যাসের জন্য সেরা লেখক হিসেবে ‘বিশাল বাংলা সাহিত্য পুরস্কার’ লাভ করেন ২০১৭ সালে। তাঁর লেখা ‘পারমিতাকে শুধু বাঁচাতে চেয়েছি’ সেরা উপন্যাস হিসেবে স্বীকৃতি পায় ২০১৬ সালে। বিশাল বাংলা প্রকাশনী এ স্বীকৃতি প্রদান করে। এছাড়া বাংলা ভাষার একজন জনপ্রিয় সাহিত্যিক হিসেবে পুরস্কার প্রদান করে নাট্যসভা ২০১৭ সালে। মোস্তফা কামাল অগাস্ট, ২০১৮ সনে কলকাতায় বিশেষ সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন, পেয়েছেন ‘সায়েন্স ফিকশন সাহিত্য পুরস্কার’ ২০১৭ সাংবাদিকতা পেশার ব্যস্ততার মধ্যে যাঁরা সৃষ্টিশীল কাজের ধারা বজায় রাখতে পেরেছেন, তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন মোস্তফা কামাল। বাংলাদেশও সায়েন্স ফিকশন সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য বাংলাদেশ সায়েন্স ফিকশন সোসাইটি সাহিত্য পুরস্কার প্রদান করে ২০১৮ সালে।

Print Friendly